জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১১ মার্চ ২০১৯

শ্রমজীবী বিচারপ্রার্থীদের সরকারি খরচে আইনগত সহায়তা দেওয়া হচ্ছে


প্রকাশন তারিখ : 2019-03-11

logo

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক সংসদকে জানিয়েছেন, দরিদ্র, সুবিধাবঞ্চিত ও বিচার পেতে অসমর্থ প্রান্তিক পর্যায়ের বিচারপ্রার্থী ও শ্রমজীবী জনগণকে সরকারি খরচে আইনগত সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। এক্ষেত্রে জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার তত্ত্বাবধানে সরকার গঠিত কমিটি লিগ্যাল এইড অফিস কাজ করছে। 

আজ সোমবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে লিখিত প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এতথ্য জানান। ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে এসংক্রান্ত প্রশ্নটি উত্থাপন করেন সরকার দলীয় সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফ। লিখিত জবাবে তিনি আরো জানান, এ জন্য সরকারি খরচে আইনগত পরামর্শ প্রদান, বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির উদ্যোগ গ্রহণ, বিনামূল্যে ওকালতনামা সরবরাহ, মামলা পরিচালনার জন্য আইনজীবী নিয়োগ, আইনজীবীর ফি পরিশোধ, সালিশকারীর সম্মানী পরিশোধ, আদেশের অনুলিপি সরবরাহ, ডিএনএ টেস্টের ব্যয় পরিশোধ এবং পত্রিকায় প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ব্যয়সহ প্রাসঙ্গিক সকল ব্যয় পরিশোধ করা হয়।

আওয়ামী লীগের সদস্য মাহফুজুর রহমানের প্রশ্নের লিখিত জবাবে আনিসুল হক জানান, বৃটিশ ও পাকিস্তান আমলে প্রণীত ৩৭৮টি আইন চালু আছে। আইনগুলো সংবিধানের ১৪৯ অনুচ্ছেদ দ্বারা হেফাজত করা হয়। এরপর ১৯৭৩ সালে বাংলাদেশ ল’স (রিভিশন এণ্ড ডিক্লারেশন) প্রণয়নের মাধ্যমে স্বাধীনতার পূর্ব আইনগুলোকে প্রয়োজনীয় প্রয়োজনীয় সংশোধন ও অভিযোজনপূর্বক বহাল রাখা হয়েছে।

একই প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, স্বাধীন আইন কমিশন আইনের প্রয়োজনীয় সংশোধনী ও নতুন আইন প্রণয়নের জন্য সুপারিশ করে থাকে। উক্ত সুপারিশ বিবেচনায় নিয়ে বিভিন্ন আইন আধুনিকায়ন ও বাস্তবমুখী করার জন্য সংশোধন ও প্রণয়ন করা হয়। এক্ষেত্রে আইন কমিশন উক্ত আইনগুলো বাতিল করে নতুন আইন প্রণয়নের সুপারিশ করলে সরকার তা যাচাই সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিবে।

সরকারী দলে সদস্য শামসুল হক টুকু ও বিরোধী দলের সদস্য নাসরিন জাহান রতনার প্রশ্নের জবাতে আইন মন্ত্রী জানান, মামলা জট কমাতে ও বিচার ব্যবস্থায় দীর্ঘসূত্রিতা কমিয়ে বিচার কাজ ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে বিচারকের সংখ্যা বৃদ্ধি ও এজলাস সঙ্কট নিরসনে বেশ কিছু কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সাফল্যে অর্জিত হয়েছে। তিনি আরো জানান, মামলা দ্রুত বিচার ও নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে অন্যতম একটি প্রতিবন্ধকতা হলো এজলাস সঙ্কট। এজলাস স্বল্পতা দূর করে সর্বোচ্চ কর্মঘন্টা ব্যবহার করে বিচার কাজে গতিশীলতা আনয়নে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। বিচারকের সংখ্যা বৃদ্ধি ও এজলাস সঙ্কট নিরসনের পাশাপাশি সরকার বর্তমানে মামলা ব্যবস্থাপনার দিকে বিশেষ নজর দিয়েছে। 

মন্ত্রী আনিসুল হক জানান, বর্তমান সরকার বিচারপ্রার্থী জনগণের ভোগান্তি লাঘবের জন্য একটি আধুনিক বিচার বিভাগ ও বিচার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর গতিশীল নেতৃত্বে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বিচার বিভাগ আধুনিকায়ন ও গতিশীল করার লক্ষ্যে সরকার যেসকল পদক্ষেপ নিয়েছে তা বাস্তবায়িত হলে সারাদেশে বিচারাধীন মামলার সংখ্যা একটি সহনীয় পর্যায়ে নেমে আসবে এবং মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে কার্যকর ও দৃশ্যমান উন্নয়ন সাধিত হবে বলে তিনি উল্লেখ করেছেন।  

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ মার্চ, ২০১৯ ১৭:০৪

 

Share with :

Facebook Facebook